in

কোভিড-১৯ সংকট ভ্রমন শিল্পকে নিয়ে যাচ্ছে ২০ বছর পিছনে

কোভিড-১৯ সংকট ভ্রমন শিল্পকে নিয়ে যাচ্ছে ২০ বছর পিছনে

২০২০ সাল দেখেছে কোভিড-১৯ মহামারির প্রকোপ। যার আগে বিশ্বের সবচেয়ে বড় মার্কেটগুলোর একটি ছিল ট্যুরিজম। যুগ যুগ ধরে অন্যতম ব্যবসা-সফল এই শিল্পটি মুখ ধুবড়ে পড়েছে কোভিড মহামারির কারনে। জাতিসংঘের সেক্রেটারি জেনারেল অ্যান্টোনিও গুটিরেজের রিপোর্ট অনুযায়ী, ভ্রমন শিল্পে করোনা ভাইরাসের প্রভাব অত্যন্ত ভয়ংকর। তার রিপোর্ট অনুযায়ী, এই ইন্ডাস্ট্রির ১২০ মিলিয়ন মানুষ তাদের কর্মক্ষেত্র হারাতে পারেন কোভিড মহামারির কারনে। আর্থিক ক্ষতির হিসেবে শুধু এক বছরেই যা ছাড়িয়েছে এক ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলারেরও বেশি।

২০২০ সালের মার্চে বিশ্বজুড়ে ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়ায় প্রায় সব দেশই বাধ্য হয়েছিল তাদের বর্ডার বন্ধ করে দিতে। আন্তর্জাতিক ভ্রমন একেবারেই বন্ধ হয়ে যায় এপ্রিল-মে মাসের দিকে। যার পরিপ্রেক্ষিতে বছরের প্রথম পাঁচ মাসেই ভ্রমনের সংখ্যা আগের বছরের তুলনায় প্রায় ৬০ শতাংশ কমে যায়। মার্কিন ডলারের হিসেবে প্রায় ৯১০ বিলিয়ন থেকে ১.২ ট্রিলিয়ন আর্থিক ক্ষতি দেখেছে বিশ্ব, যা এই শিল্পকে এক ধাক্কায় পিছিয়ে নিয়েছে প্রায় ২০ বছর।

প্রয়োজনীয়তা

এক ভিডিও বার্তায় অ্যান্টোনিও বলেন, তেল ও কেমিক্যালের পর ট্যুরিজম বৈশ্বিক অর্থনীতিতে তৃতীয় বৃহত্তম ইন্ডাস্ট্রি যা ২০১৯ সালে বৈশ্বিক লেনদেনের প্রায় ৭% অবদান রেখেছিল। তবে মহামারির কারনে ২০২০ সালের প্রথম পাঁচ মাসেই তা নেমে এসেছে প্রায় অর্ধেকে, অনেক মানুষ হারিয়েছে বাঁচার সম্বল।

অ্যান্টনিওর মতে, বিশ্বের প্রথম সারির দেশের জন্য এটি একটি ধাক্কা হলেও তৃতীয় সারির দেশগুলোর জন্য এটি একটি ‘গুরুতর অবস্থা’। কিছু দেশের জিডিপিতে ট্যুরিজম ২০% এর বেশিও অবদান রাখে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

তাঁর মতে, “আয় করার একটি অন্যতম ক্ষেত্র এই ভ্রমন শিল্প, যা একই সাথে অনেক দেশের সংস্কৃতি ও প্রাকৃতিক ঐতিহ্যের ধারা রক্ষা করে চলেছে।“ বিশ্বের প্রায় ৭% ট্যুরিজম বন্যপ্রাণী সম্পর্কিত, যা প্রতিবছর প্রায় ৩% করে বৃদ্ধি পাচ্ছে। অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে এই ইন্ডাস্ট্রিটি আবার চালু করার বিকল্প নেই বলেও মত দেন তিনি, তাঁর ভাষায় এটি অনেক দেশকে অর্থনৈতিক মন্দা থেকে বাঁচাতে পারে।

জাতিসংঘ ওয়ার্ল্ড ট্যুরিজম অরগানাইজেশন অনুযায়ী, ২০০৯ সালের মন্দায় বৈশ্বিক অর্থনীতিতে যে প্রভাব পড়েছিল, করোনা মহামারিতে ২০২০ সালের প্রথম পাঁচ মাসেই ক্ষতি বৃদ্ধি পেয়েছে প্রায় তিনগুন, আর্থিক হিসেবে যা প্রায় ৩২০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। বৈশ্বিক জিডিপি নেমে যেতে পারে প্রায় দেড় থেকে তিন শতাংশ পর্যন্ত। এবং এই ইন্ডাস্ট্রির সাথে ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে আরো প্রায় ১৪৪ মিলিয়ন কর্মজীবি মানুষ যারা প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে টুরিজমের উপর নির্ভরশীল ছোট ব্যবসায় করতেন বা কাজ করতেন।

প্রায় সব দেশই এখন পর্যন্ত তাদের বর্ডার বন্ধ রেখেছে, যদিও কিছুক্ষেত্রে আমরা শিথীলতা দেখা যাচ্ছে। ট্যুরিজমের আগের জায়গায় ফিরে আসতে এখনো অনেকটুকু পথ পাড়ি দিতে হবে, যা অনেকাংশে নির্ভর করে মহামারি ও মানুষের অর্থনৈতিক অবস্থার উপরই।

জাতিসংঘ ওয়ার্ল্ড ট্যুরিজম অরগানাইজেশনের ধারনা অনুযায়ী, ২০২০ সালে এই ইন্ডাস্ট্রি ৫৮% থেকে ৭৮% ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে। বিশ্বের অনেক শহরে যা ৮০%-৯০% পর্যন্তও কমে গিয়েছে। বিশ্বের অনেক জাদুঘর, খেলাধুলা ও বিনোদন পার্ক বন্ধ থাকায় এই ক্ষতি থেকে বের হয়ে আসা যাচ্ছে না। গড়ে বিশ্বব্যাপী ৬৫% শতাংশ ক্ষতি হয়েছে প্রথম ৬ মাসেই।

ইন্ডাস্ট্রি

বিগত কয়েক দশক ধরে ট্যুরিজম ইন্ডাস্ট্রির অগ্রগতি ছিল চোখে পড়ার মত। গত এক দশকেই যা বৃদ্ধি পেয়েছে ৫৯ শতাংশ। ২০০৯ সালে বৈশ্বিক টুরিস্টদের সংখ্যা ছিল ৮৮০ মিলিয়ন, যা ১০ বছরের মাথায় ২০১৯ সালে হয়ে দাঁড়িয়েছে দেড় বিলিয়ন। বৈশ্বিক জিডিপিতে সামগ্রিকভাবে ট্যুরিজম ইন্ডাস্ট্রি ৮.৯ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার অবদান রেখেছে। প্রতি দশটি চাকরির একটির নিশ্চয়তা দেয় এই ইন্ডাস্ট্রি। কোভিড মহামারির পরিস্থিতি যা থমকে দাঁড়িয়েছে ২০২০ সালে।

বর্ডার বন্ধ ও ভ্রমনে নিষেধাজ্ঞা

কোভিড মহামারির সাথে সাথে বিশ্বের প্রায় সব দেশই দেখেছে ভ্রমন নিষেধাজ্ঞা, অন্য দেশের সাথে বর্ডার বন্ধ করে দেয়া। বিমান চলাচল নেমে এসেছে প্রায় শুন্যের কোঠায়। প্রতিটি দেশই প্রানপণে মহামারি ঠেকানোর চেষ্টা করে চলেছে ।

২০২০ এর প্রথম ছয় মাসেই ৯৩% মানুষকে থাকতে হয়েছে লকডাউনে, যাদের মধ্যে অনেকাংশই পর্যটক।

পতন

বৈশ্বিক ভ্রমনের সংখ্যা গত এক দশক ধরেই বেড়ে চলেছে। ২০১৭ সালে ছিল ১.৩ বিলিয়ন, ২০১৮ সালে ছিল ১.৪ বিলিয়ন, ২০১৯ সালে ছিল ১,.৫ বিলিয়ন। কোভিড পরিস্থিতিতে আগের বছরের তুলনায় প্রথম তিন মাসে যা কমে এসেছে ২২%, ছয় মাসে যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬৫% এ।

হোটেল ব্যবসায় প্রভাব

লকডাউনে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায় গুলোর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে হোটেল সেক্টর। আগের বছরের তুলনায় ইটালিতে হোটেলে অতিথিদেরসংখ্যা নেমে এসেছে সবচেয়ে বেশি, ৯৬ শতাংশ। চীনে নেমে এসেছে ৬৮ শতাংশ, যুক্তরাজ্যে ৬৭% শতাংশ, যুক্তরাষ্ট্রে ৫৯ শতাংশ ও সিঙ্গাপুরে ৪৮%। সন্দেহ নেই, এই সেক্টরের ঘুরে দাঁড়াতে অনেকটুকুই সময় লেগে যাবে।

নিরাপদ ভ্রমন

ট্যুরিজম ইন্ডাস্ট্রিকে পুনরায় চালু করতে প্রথম প্রয়োজন যাত্রীদের নিরাপত্তা। ভ্রমনকারীরা নিরাপদ বোধ না করলে সহজে এই ইন্ডাস্ট্রিতে ফিরে আসছেন না তা ধরেই নেয়া যায়। ওয়ার্ল্ড ট্র্যাভেল অ্যান্ড ট্যুরিজম কাউন্সিল শুধুমাত্র সরকারী ও সরকার অনুমোদিত কিছু কোম্পানী যারা স্বাস্থ্য ও পরিচ্ছন্নতা রক্ষার বিধিনিষেধ বেধে দিচ্ছেন, তাদের অনুমোদিত টুরিস্টদেরই অনুমতি দেয়া হচ্ছে।

সেপ্টেম্বর ২০২০ এর মধ্যে ১০০টি দেশকে নিরাপদ ঘোষনা দেয়া হয়েছে। যাদের মধ্যে আছে সৌদি আরব, স্পেন, পর্তুগাল ও মেক্সিকো। ১০০ তম দেশ হিসেবে নিরাপদ তকমা পেয়েছে ফিলিপাইন।

বিশ্বজুড়ে ট্যুরিজমের ফেরা

বিশ্বজুড়ে লকডাউন শেষ হওয়ার কারনে অনেক দেশই অন্যদেশসমূহের সাথে বর্ডার খুলে দিচ্ছে। যদিও অনেক সরকার “অপ্রয়োজনীয়” ভ্রমনকে নিরুৎসাহিত করছে, জনপ্রিয় কিছু পর্যটক দেশ পর্যটকদের স্বাগতম জানাতে নিজেকে প্রস্তুত করে নিয়েছে। ভ্রমন খাত ধীরে হলেও ফিরে এসেছে অনেক দেশে, তবে জাতিসংঘ ওয়ার্ল্ড ট্যুরিজম অরগানাইজেশন বলছে, পরিস্থিতি সম্পুর্ন স্বাভাবিক হতে ২০২১ সালের প্রথম ছয় মাস অন্তত লেগে যাবে। যদিও সঠিক তথ্য উপাত্তের অভাব, অর্থিনীতির পতন ভ্রমনকারীদের ভ্রমনে নিরুৎসাহিত করছে। পাশাপাশি এটাও মাথায় রাখতে হবে যে মহামারির দ্বিতীয় ধাক্কার আশংকাও উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছে না।

বাংলাদেশ পরিস্থিতি

অন্যান্য দেশের মতই, কোভিড পরিস্থিতির প্রথম কিছু মাসে বাংলাদেশও আগের বছরের প্রথম ছয় মাসে দেখেছে  ভ্রমন খাতে ব্যাপক ক্ষতিসাধন। যদিও ধীরে ধীরে শিল্পটি এই দেশে প্রাণ ফিরে পাচ্ছে।

বাংলাদেশে আকাশপথ-নৌপথ, রেলপথ ও সড়কপথ প্রায় সবই খুলে দেয়া হয়েছে। জনপ্রিয় পর্যটক স্পটগুলো কাজে ফিরে এসেছে। ঘরোয়াভাবে ভ্রমন খাত ভালোভাবেই ঘুড়ে দাঁড়াতে পারছে বলে মনে হচ্ছে, এমনকি কিছু রিসোর্ট-মোটেল ধরনের প্রতিষ্ঠান ভালোভাবে ব্যবসা করতে পারছে মহামারির মধ্যেও!

What do you think?

Written by Tamanna Reza

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Top Three Things to Do in Kashmir

Top Three Things to Do in Kashmir

ভ্রমন যখন আপনার আয়ের উপায়

ভ্রমনের মাঝেই খুঁজে নিন আয়ের উপায়